এই বছরে ২০১৭ সালে সর্বোচ্চ স্তরের কার্বন নির্গমন হবে
২০১৭ সালে বৈশ্বিক কার্বন নির্গমনের পরিমান গত বছরের চেয়ে প্রায় ২% বেশি হওয়ায় আশংঙ্কা করছে বিজ্ঞানিরা।

২০১৭ সালে বৈশ্বিক কার্বননির্গমনের পরিমান গত বছরেরচেয়ে প্রায় ২% বেশি হওয়ায়আশংঙ্কা করছে বিজ্ঞানিরা। একই সাথে আশাকরা হয়েছে যে, বৈশ্বিককার্বন নির্গমনপ্যারিসের জলবায়ু চুক্তির আনুসারে গ্লোবাল ওয়ার্মিং ১.৫ ডিগ্রিসেন্টিমিটার নীচেরাখার চেষ্টা করা হবে।

পূর্বএঙ্গেলিয়া এবংগ্লোবাল কার্বন প্রজেক্টের বিজ্ঞানীরা নতুন গবেষণা মতে ধারণাকরেছেন যে, আগামিতিন বছরে মোটবিশ্বব্যাপী কার্বন নির্গমনের মাত্রা শূন্যতে আনার যে সংকল্প নেওয়াহয়েছে তাতে ২০১৭সালের এই বর্ধিত মাত্রা অপেক্ষাকৃত দৃষ্টিক্টূ। কার্বণ বৃদ্ধিরসঠিক পরিসংখ্যানটিঅজানা রয়েছে, কারণএই বছরটি এখনোসম্পূর্ণ ভাবে শেষ হয়নি।যে কারণে পরিসংখ্যান গুলিতে অনিশ্চয়তারয়েছে, তবেঅনুমান অনুসারে, ২০১৬সালের চেয়েনির্গমনের মাত্রা ১% থেকে ৩% এর বেশি হবে।

এইতথ্যটি জার্নালএনভায়রনমেন্টাল রিসার্চ লেটারস অ্যান্ড নেচার ক্লাইমেট চেঞ্জ এরএকত্রে গবেষণায় প্রকাশিত হয় এবং বনে জাতিসংঘের ক্লাইমেট চেঞ্জ কনফারেন্সেঘোষণা করা হয়,যেটি কপি ২৩ নামে পরিচিত।

চীনেরক্রমবর্ধমানঅবনমনের পরিসমাপ্তি এবং উন্নয়নশীল বিশ্ব জুড়ে প্রবৃদ্ধির ফলে বড়আকারে এইপ্রবৃদ্ধিটি চালিত হয়। পূর্বে, মার্কিনযুক্তরাষ্ট্রেএবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের হ্রাস নীতির দ্বারা বিকশিত উন্নয়নশীলবিশ্বের অনেক বেশিপরিমাণে নির্গমন কে সমতা করত, কিন্তু এইহ্রাসেরমাত্রা এখন অনেকটাই কমে গেছে।

খবরটিরএকটি বিশ্লেষণআমাদেরকে  আশাবাদী করে যে , "উচ্চাভিলাষী"কিন্তুবাস্তবসন্মত  কার্বন হ্রাসের কারণে, বিশ্বের প্যারিসেদেওয়ালক্ষ্যমাত্রা পূরণের একটি ভাল সুযোগ ছিল।

ইউনিভার্সিটিঅবএক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়ুমন্ডলীয় বিজ্ঞানের অধ্যাপক অ্যান্ড্রু ওয়াটসন মনে করেন, এইসংবাদ সর্বজনীনভাবেখারাপ নয়। তিনি বিজ্ঞান মাধ্যম কেন্দ্রকে বলেন,"সামগ্রিকভাবেআশাবাদেরকারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে: নির্গমনগুলি এখনো চূড়ান্ত হয়নি, তবেক্রমবর্ধমানবৈশ্বিকঅর্থনৈতিক কার্যকলাপের সত্ত্বেও তারা নিঃসন্দেহে সমতা অর্জনকরছে।

"এটি একটি আশাব্যঞ্জিতসাইন যে আমরা জলবায়ু পরিবর্তনেরসবচেয়ে ক্ষতিকর প্রভাবগুলি এড়াতে পারি, অথচ এখনওঅর্থনৈতিকপ্রবৃদ্ধি উপভোগ করছি। তবে আমরা দ্রুত গতির প্রবণতাটি জীবাশ্ম জ্বালানিথেকে এবংনবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে দূরে রাখতে পারিনি।"

কিন্তুঅক্সফোর্ডইউনিভার্সিটির ভৌগোলিক বিজ্ঞান অধ্যাপক মাইলে অ্যালেন সতর্ক করেদিয়েছিলেন যেখারাপ সংবাদের অন্যান্য লক্ষণও আছে। তিনি এসএমসিকে জানান যে, নির্গমনেরপ্রবৃদ্ধিরপাশাপাশি প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে যে বিজ্ঞানীরা বুঝতে পেরেছিলেন যেউষ্ণতা দ্রুততরহচ্ছে: "এল নিনোর প্রভাবকে আমরা ফিল্টার করার পরেও, অন্তর্নিহিততাপমাত্রাপ্রবণতা আগের চেয়ে দ্রুততর।

"জলবায়ু পরিবর্তন, বিশেষ করে মিথেনেরকারনেকার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমনের মন্থরতা সত্ত্বেও গত কয়েক বছরে মানুষেরউদ্দীপকতাপমাত্রা ত্বরান্বিত হয়েছে।"

YOUR REACTION?

Facebook Conversations



Disqus Conversations