১৩ টি সচরাচর আচরণ যা একটি যুগল- দম্পত্তি তে দেখবেন তখন যখন তাদের সম্পর্ক দীর্ঘ স্থায়ী হতে থাকে।

সম্পর্ক চলমান করতে গিয়ে একটি যুগল দম্পত্তি কে হতে হয় পরিবর্তিত। একজন নারী ও একজন পুরুষ দুজন দুজনের অভ্যাসে পরিনিত হয় এবং সেটা হয় ভালোবাসার দরুণ। একটু ভিন্য আলোচনা।
ভালোবাসা আছে বলেই আমাদের লেখকদের এইসব মজার মজার আলোচনা। যুগল দম্পত্তি সম্পর্করে মধ্যে বাধ্য হয়ে রয় মৃত্যুর আগে পর্যন্ত যে সম্পকর্কে আমরা বিয়ে বলি, এই সম্পকর্কে মাঝে কিছু বিষয় ছেলেটি এবং মেয়েটির মাঝে চলে আসে যা তারা এক হওয়ার আগে তাদের মাঝে ছিলো না।

1. আদর-এর নামকরণ

আদর-এর নামকরণ

১/  যুগল  দম্পত্তির  মধ্যে  আমি  সবসময়  একটি  জিনিস বেশি  দেখি  সেটা  হলো  একজন  আর  একজন কে  আজব  আজব  নাম এ  ডাকা।  যেটা  অনেক সময় পরিবারের লোক জন ছাড়া কেউ  শুনলে  খুবই  বিরক্তো বোধ  করবেন  আবার  হাসা হাসিও করবেন।  নামগুলো  হয় - জান,  বউ,  কলিজা,  ময়না -পাখি,  জ়ান-পাখি,  টুনটুনি ,  কইতরি।  এরকম  আরো  অনেক  মিষ্টি মিষ্টি  নাম আছে  যেগুলো  অনেকের  কাছেই  হাসির বেপার  আবার  অনেকের  কাছে  আজব।  আমি   আমার  ভালোবাসার  মানুষটিকে  এরকমই  একটি   নাম  এ  ডেকে  থাকি  এবং  বেপারটি   আমার   কাছে  খুবি  প্রেমোময়।

2. মিয়াও! মিয়াও!

মিয়াও! মিয়াও!

২/ এই  বেপারটি  আমার  কাছে  সবচেয়ে   ভালোলাগার।  যখন  মেয়েটি  ছেলেটিকে  কোন  কিছু  জানতে  জিঙ্গেস  করে  ছেলেটি  খুব  দুষ্টামির  ছলে  কোনো  কথা  না  বলে  একটি  বিড়ালের  মতো  ডাক  দিলো   " মিয়াঁও! "  মেয়েটি   আবার  জিঙ্গেস  করল  তখন  ছেলে  দুষ্ট  চোখে  তাকিয়ে  আবার "মিয়াও!"  তখন  কি  হয়  দুইজন  দুইজনের  দিকে  দুষ্ট   চোখের  চাহনি  এবং  হাসা-হাসি।  এই  যে  বেপার  গুলো ,  এগুলো  একমাত্র  এক  সাথে  অনেক  দিন  থাকার  পরেই  ঘটে  থাকে  বেশির  ভাগ  সময়।   যেটা  যুগল-দম্পত্তিতে   খুবই  আমুদের  বেপার।

3. তুমি না! আমিই !

তুমি না! আমিই !

৩/  ঘরে  খাওয়া-দাওয়ার  পরে  কে   সব  আবার  পরিষ্কার  করবে  এটা  নিয়ে  সাধারণত  প্রতি  গৃহেই  তর্ক বির্তক  হয়ে  থাকে।  কিন্ত  একটি  যুগল  দম্পত্তি  দীর্ঘ   সময়ের   সম্পকর্তে   গৃহে  এই  সব  নিয়ে  কোন  কথাই  হয়  না , বরঞ্চ   " না  থাক!  আমি  কাজটি  করবো,   তুমি না '   এই  জাতীয়  তর্কটাই   হয়ে  থাকে।  এবং  দুজনের  প্রতি  ভালবাসাই  এ  কাজ  আচরণ  গুলো  করিয়ে  নেয়।

4. খাবারের শেষ অংশ!

খাবারের শেষ অংশ!

৪/  খাবার-দাবার  খাওয়া  নিয়েতো  আরো  জোড়া-জোড়ি !!!  কে  খাবারের  শেষ  অংশটা  খাবে!!! যেমন  পিত্তজ্জা !!!  স্ত্রী  স্বামী কে  এগিয়ে  দেয় ,  স্বামী  স্ত্রী  কে  এগিয়ে  দেয়।  এই বেপার  গুলো  খুবই  মনভর।  কোথাও  রেস্টুরেন্টএ   খেতে   গেলে  অন্যান্য  পরিবার  সদস্যদের  সামনে  যুগল  দম্পত্তির এই  ঘটনা  গুলি  খুবই  মনরঞ্জনকর।  বয়জেষ্ঠরা  মুখটিপে  হাসা  হাসি  করেন,  কিন্ত  আমার  কাছে  রোমান্টিক।  

5. উপহারকে নাম দিয়া ডাকা

উপহারকে নাম দিয়া ডাকা

৫/  ঘরে  ব্যবহৃরিত  তাদের  অনেক  জিনিস  থাকে  যে গুলোকে  ইনারা  নানান  নাম  দিয়ে থাকেন।  যেমন  দুজনের   দেখার প্রথম উপহার টির মধ্যে একটি  নাম প্রেরণ।  বেপারটি  হাস্যকর  কিন্তু ভালোবাসায়  করেছে  অন্ধ  তাতে  কার  বাপের  কি!!! হা ! হা! হা!  কথাটা  একটু  বাঁধ  ছাড়া  হয়ে গেলো, কিন্ত  সম্পর্ক  পুরোনো  হতে  শুরু  করলে  এরকমটাই  হয়।  দুজনের  প্রথম দেখায়  ছেলেটির  দেয়া মেয়েটির  প্রথম  নরম  ভাল্লুকের  পুতুলটির  নাম  দিচ্ছেন গল্টু বা কুট্র্রুস  ধরনের  নাম যেটাকে  মেয়েটি   তার  জীবন  সাথীকে  বোঝাচ্ছেন।  এরকম  অনেক  মজার  মজার  ব্যাপার  দুজনের  মাঝে  ঘটবে  যখন  সম্পকর্টি  অনেক  দিনের  হবে।

৬/  আমরা  অনেক  সময়  দেখি একটি  যুগল দম্পতি  তাদের  জীবনে  চলা  ফেরাতে  অনেক  ছোট খাটো   ভুল-ভাল  করছে যে  গুলোকে  অন্য  সময়  অন্য  কেও  কিছুতেই  স্বাভাবিক  ভাবে  নিবেনা। কিন্ত  ওই   দম্পত্তি  তাদের  ভুল  গুলো  গায়েই  লাগছেনা  বরঞ্চ  ভুল  গুলোর  সময়  একজন  আর একজন  এর  দিকে  তাকিয়ে  হাসছে।  একটা  ধাক্কা  খেলো,  একজন  আর  এক জন কে  ধরে হেসে উড়িয়ে দিলো।  খাওয়া শেষে  বিশাল  বড়ো  এক ঢেকুর , আশেপাশে  সবাইতো  নাকে   চাপা,  কিন্ত  এই কপোত -কপোতী  তো  উপভোগ  করলোই  এবং দারুন  হাসির  এক  কারন  খুজে  পেলো।  এ  সবই  হয়  যখন  একটি  সম্পর্ক  দীর্ঘ  স্থায়ী  হয়।

7. রেস্টুরেন্ট পরিচিতি

রেস্টুরেন্ট পরিচিতি

৭/  এই  যুগল-দম্পতিদের  চিরাচরিত  একটি  খাবারের  রেস্টুরেন্ট  থাকে  যেখানে  তারা সবসময় খেতে  যায়  এবং  ওখানকার  কর্মরত দের  একজন  কর্মচারী  থাকবেই  যারা  এই  যুগল দম্পত্তির  খাবারের  মেনু  মুখস্ত  থাকবে।  এবং  তারা  রেস্টুরেন্ট  এ   আসার  পরই  ওই  কর্মচারী  গুলো  তাদের খিদমতএ  লেগে  যায়!  একটি  দীর্ঘ  লম্বা  সম্পর্কে  এই বেপার  গুলো  থাকে।  

8. এক গুছো ফুল

এক গুছো ফুল

৮/  প্রতিদিন  ছেলেটি  ঘরে  ফেরার  পথে  তার  জীবন  সঙ্গিনীটির  জন্য  হাত  ভের  একগুচ্ছ  ফুলের তোরা  নিয়ে  বাড়ি ফেরা।  খুবই  প্রেমময়।  রান্না  ঘরের  একটি  কোনায়  অথবা  বসার  ঘরে  একগুচ্ছো ফুল  সব-সময়ই  থাকে  একটি  দীর্ঘস্থায়ী  যুগল-দম্পত্তির সংসারে।

9. হিংসা

হিংসা

৯/  হিংসা !!! শুনে একটু খারাপ লাগে, কিন্ত  আজ  হিংসা   সব্দটি  ব্যবহার  হবে  এক  জন  আর একজন  কে  ভালোবাসার  দরুন।  এবং  প্রতিটি  ছেলে ও মেয়ে  চাবে  এই  হিংসাটি   যেন   তার  জীবন সঙ্গী -সঙ্গিনীটি   তাকে  নিয়ে  করে। একটি  যুগল-দম্পতি কোথাও   এক  জায়গায়   ঘুরতে  গেছে হঠাৎ  মেয়েটি  খেয়াল  করল  অন্য একটি  নারী  তার  সঙ্গীটির  দিকে  আরঁ  চোখে  তাকানো ,  মেয়েটি  এখন হিংসায়  রেগে-মেগে শেষ।  ঠিক  একই  ঘটনা  ছেলেটির  বেলাতেও।  এই  ব্যাপার  গুলো  যদি একটি  দম্পতির  মধ্যে  না থাকে  তবে  ওই  সম্পর্কের  মাঝে   আসলে  কোনো   ভালোবাসা  ও খেয়াল নেই কারো  প্রতি  কারো।  একটি  সম্পর্কের  গভিরতা  এখানেই।

10. জ়োড়া ভাঙ্গা

জ়োড়া ভাঙ্গা

১০/ একজন  আর  একজনকে  ছেড়ে,  যাকে  বলে  জ়োড়া  ভেঙ্গে  কোন  কাজ  যদি  করতে  বাধ্য  হয় তাহলে এই  যুগল  দম্পতির   মন  খুবই  খারাপ  হয়ে  যায়। কারন  এতদিন  এক   সাথে  এই  দম্পতি আছে,   একজন  আর  একজন  ছেড়ে   যদি  কোন  কাজ  যেমন   মুভি  দেখা,  পিকনিকএ   যাওয়া , কোথাও   ঘুরতে   যাওয়া!   এই  সব  ব্যাপারেই   দুইজন  দুইজন  কে  চাবে।  যদি  একজন  আর   একজন  কেনা  পেলো  তবে  এই   দম্পতি   সহজে  কোথাও  গিয়ে  খুশি   অনুভব  করতে  পারে  না। সম্পর্কটি  অনেক  দিনের  হয়ে  গেলে  দুইজন  দুইজনের  প্রতি  এরকমই  হয় যায়।

11. মোবাইলে বার্তা

মোবাইলে বার্তা

১১/  যুগল-দম্পতি এক সাথে  থাকা কালীন  সময় অনেক  আজিব  আজিব  ব্যাপার  তাদের মাঝে  হয়ে থাকে। তার  মধ্যে একটি একজন আর একজন এর সামনে থেকেও  মোবাইলে বার্তা পাঠানো, নানা রকম  কার্টুন  ইমোজি  পাঠিয়ে  এক জন আর এক  জনের   দিকে  আড়ঁ চোখে চাহুনি ! বেপার গুলো খুবই মজার। এগুলো তখনি হয় যখন একটি সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয়ে উঠে। এবং সারাজীবনের  প্রেমোময়  সৃতি হয়ে বেঁচে রয়।

12. দুজন দুজনের কাছে শ্রেষ্ঠ

দুজন দুজনের কাছে শ্রেষ্ঠ

১২/ একজন আর একজনের প্রশংসা  করা।  কোথাও  ঘুরতে  যাওয়ার  আগে  দুজন কে  অতটা  সুন্দর না লাগলেও  তার পরেও  দুইজন  দুই জনের  প্রশংসায় এক্কেবারে পঞ্চচমুখ  হয়ে থাকে।  কারণ একটি দীর্ঘস্থায়ী  যুগল  দম্পতির  সম্পর্কে,  তাদের  কাছে  তার  জীবন  সঙ্গিনীটি  ছাড়া  অন্য  কাউকেই  সুন্দর বলবেনা।  তাদের  কাছে  তাদের  দুই  জনই  হবে  পৃথিবীর  সর্বসেরা।  একটি  দীর্ঘস্থায়ী  দম্পতির সম্পর্কের  তাৎপর্যই এটা।

13. সমান-সমান

সমান-সমান

১৩/  যুগল-দম্পতিদের  মধ্যে  ছেলে  ও  মেয়ের  যে  ব্যাপারটি  তা  বলতে  গেলে  ওরা  অনেক  সময়  ভুলে যায়।  তা  কি  ভাবে?  এক  জন  আর  একজনের  পরিধানকৃত  কাপড়  পরে  ফেলে।  এবং তা  হয়  কখনো  ইচ্ছা  করে  আবার  কখনো  ভুল  করে।  যেটা  এই  দম্পতিরা  খুব  উপভোগ  করে থাকেন।

সম্পর্ক চলমান করতে গিয়ে একটি যুগল দম্পত্তি কে হতে হয় পরিবর্তিত। একজন নারী ও একজন পুরুষ দুজন দুজনের অভ্যাসে পরিনিত হয় এবং সেটা হয় ভালোবাসার দরুণ। একটু ভিন্য আলোচনা।