রাসুল সাঃ এর প্রিয় ৩টি খবার ও তাঁর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা।

খাদ্য।

ছাগলের গোস্ত,সহি বুখারি কিতাবের ঈমান অধ্যায় হাদিসে আবু হুরায়রা রাঃ হতে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসুল সাঃ মানে রুই ও গোস্তের একটি গামলা উপস্তি করা হলো, অতপর তিনি রান খেলেন। আর ছাগলের গোস্তের মধ্যে সেটাই ছিল তাঁর অধিক প্রিয় খাদ্য।সহীহ বুখারী হাদীস আরো একটি হাসিদে ইবনে মাসুদ (রাঃ) হতে বর্ণিত, রাসুল সাঃ বলেন তাঁর কাছে রানের গোস্ত ভাল লাগতো।এবং তিনি রানে চিহ্নিত করে দিতেন। দেখতেন ইহুদীরাও তাকে চিহ্নিত করছে। 

ছাগলের গোস্ত।

ছাগলের গোস্ত।

তাহলে এই দুটি হাদিস থেকে আমরা জানতে পারলাম যে রাসুল সাঃ ছাগলের গোস্তের রানের অংশ বেশি পছন্দ করতেন। বর্তমান চিকিৎসা বিজ্ঞান বলে আমিস আমাদের ৬ টি খাদ্যে উপাদানের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। আর ছাগলের গোস্ত আমিশের কারখানা। ২০ টির ভিবিন্ন রকম আমিন এসিডের নানা রকম সমন্বয়ের ঘটিত হয় একটি আমিষ। বেশীর ভাব আমিষ এ ১০০ থেকে ১০০০টি এমেনো অ্যাসিড থাকে।আমিষ DNA ,RNA তৈরির জন্য এমিনো এসিড সবরাহ করে।

এছাড়া ইমান জহরী (রঃ) বলেন গোস্ত সাত প্রকার শক্তি ব্রিধি করে, তাঁর মধ্যে রয়েছে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়, লাবণ্য পরিষ্কার করা, এবং পেটকে সংকোচিত করা অন্যতম। সাধারণত গোস্তের চিনির পরিমাণ থাকে ৩ থেকে ৪%। পানি তাঁর ওজনের তুলনায় ৭৫% হয়ে থাকে।এছাড়া খনিজ, ফসফরাস, পটাশিয়াম,সোডিয়াম ইত্যাদি তো আছে ই ।যা এইসব উপাদান আমাদের শরীরকে রাখে ফিট। 

মাখন

মাখন

সুনামে আবু দাউদের ২২৫ নং হাসিদে বুসরি আস সুলামিনিের দুই পুত্র বলেন, রাসুল সাঃ আমাদের কাছে আগমন করলে, অতপর আমরা মাখন ও খেজুর উপস্থাপন  করলাম। তিনি মাখন ও খেজুর বেশি পছন্দ করতেন।মাখন মুলত উট, গরু ছাগলের দুধের বিশেষ অংশ, যেটাকে অনেক ঝাকুনির ফলে মাখন বানানো হয়।

মাখনের অনেক গুনাগুণ রয়েছে, এবং এতে দুধের পুষ্টিও বিদ্যমান। এই মাখন রক্তের শিরাগুলকে শক্তিশালি করে, এবং কাশি কমাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।এছাড়া ফোঁড়া সারাতে এটি কার্যকর ভূমিকা পালন করে, মাখন জয়েন্টে শক্ত হয়ে যাওয়া কে প্রতিরোধ করে এবং সেই সাথে আর্থ্রাইটিস প্রতিরোধ করে। মাখনের এত এত গুনাগুণ থাকার পরও বিশেষজ্ঞরা মাখন কম খেতে বলেছে। কারন মাখন আছে প্রচুর চর্বি।

খেজুর

খেজুর

খেজুরের কথা বলতেন আমাদের রাসূল (সাঃ) সময়কাল ও সৌদি আরব এর কথা চলে আসে। আবু দাউদের একটি হাদিসে সাহাবি (রাঃ) বর্ণনা করেন, আমাদের প্রিয় নাবী খেজুর সব চেয়ে বেশি পছন্দ করতেন। আমাদের প্রিয় নবী আরেকটি হাদিসে বলেন গাছের মধ্যে এমন এক প্রকার গাছ আছে যা মুসলমানদের মত।আর তা হলো খেজুর গাছ। 

কেনোনা মুসলমানরা যেমন বরকতপূর্ণ তেমনি খেজুর গাছ ও তেমনি। এর খুজুর শুরু থেকে একদম শুকিয়ে যাওয়া আগ পর্যন্ত খাওয়া যায়। খুজুর এমন একটি খাবার যা সব সময় খাওয়া যায়। কি শিত কি গরম। আর এতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি, সি, আয়রন। প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম, যা হৃৎপিণ্ড ও উচ্ছরক্ত চাপের জন্য খুবি উপকারী।