ভয়ংকর এক এক দ্বীপ।

সারাবিশ্ব।

ভারতের এক দ্বীপ,যার নাম দক্ষিন সেন্টনাল দ্বীপ,বঙ্গোপসাগর এর পাশেই অবস্থিত।প্রায় ৬০,০০০ বছর ধরে এই দ্বীপে মানুষ বাস করছে।অন্যান্য দ্বীপের মত এই দ্বীপের মানুষ আধুনিক সভ্যতার সাথে পরিচিত নয়।ভারতের মত দেশের একটি দ্বীপ হওয়া সত্ত্বেও এই দ্বীপের মানুষ এখনো আধুনিকতা বুঝেনা।এমনকি বাইরের কোন মানুষ কে তাদের মধ্যে প্রবেশ ও করতে দেয়া হয়না,কেউ ভুল বশত যদি দ্বীপে চলেও আসে তাহলে মৃত্যু নিশ্চিত।

ভারত সরকার সেই দ্বীপ থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূর অব্দি সাধারন মানুষ এর যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

২০০৬ সালের ২৬ ই জানুয়ারি দুই জন জেলে সেই দ্বীপের কিনারায় তাদের নৌকা দাড় করে বিশ্রাম করছিল।কিন্তু তারা কি জানত তাদের এই বিশ্রাম ই শেষ বিশ্রাম ছিল।অধিবাসীরা তাদের তীর ধনুক দিয়ে জেলে দুটিকে মেরে ফেলেছিল।এমনকি রক্ষাবাহিনীর মানুষ ও তাদের লাশ উদ্ধার করতে পারেনি।

১৯৮৬ সালের ২৬ ই আগস্ট প্রিমরোজ নামক একটি জাহাজ দ্বীপের প্রবালপ্রাচীর এ দাড়  করেছিল।বিশ্রাম নেয়ার ফাকে হঠাৎ জাহাজের নাবিক লক্ষ্য করলে যে অনেক মানুষ তীর ধনুক নিয়ে তাদের জাহাজের দিকে ছুটে আসছে।সেদিন তারা কোন রকমে তাদের জাহাজ নিয়ে পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছিল।

২০০৪ সালে যখন ভারত মহাসাগর এ ঘুর্নিঝড় উঠে তখন দ্বীপের মানুষরা ঠিক আছে কিনা তা দেখবার জন্য ভারত সরকার হেলিকাপ্টারে সেনাবাহিনী পাঠান।যখন বাহিনী তাদের হেলিকাপ্টার দিয়ে দ্বীপের আকাশে যায় তখন দেখতে পাই তারা খুব ভাল ভাবেই আহত,কিন্তু হেলিকাপ্টার এর উপস্থিতি টের পাবার সাথে সাথে তারা তীর ধনুক নিয়ে ছুটে আসে।

সেই দ্বীপে সর্বমোট কতজন মানুষ আছে তার সঠিক হিসাব জানা নেই, তারা কিভাবে চলে তার ও কোন হদিস নেই।