হতাশজনক ডিভিডেন্ড ঘোষণা

দেশের পুঁজিবাজারে তফসিলভুক্ত. . .

দেশের পুঁজিবাজারে তফসিলভুক্ত ৬টি প্রতিষ্ঠানের লভ্যাংশ ঘোষণা হতাশ করেছে বিনিয়োগকারীদের। কারণ প্রতিষ্ঠানগুলো আগের বছর তুলনামূলক কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এতে যারা ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার আশায় বসে ছিলেন তারা অনেকটাই নিরাশ হতে হয়েছে।

গত সপ্তাহে ঘোষণা করা ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬টিই আগের বছর তুলনায় কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর মধ্য দুই প্রতিষ্ঠানের কোন লভ্যাংশ দেওয়া হয়নি বিনিয়োগকারীদের। প্রতিষ্ঠানের দুটি হলো- এবি ব্যাংক ও বিআইএফসি। অন্যদিকে, ১১টি প্রতিষ্ঠানের আগের বছর তুলনায় বেশি লভ্যাংশ দিলেও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে। আর এতে অনেক বিনিয়োগকারী হতাশা প্রকাশ করেছে।

কম লভ্যাংশ ঘোষণা করা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো –  সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক ন্যাশনাল ব্যাংক, ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কর্মাস ব্যাংক, এবি ব্যাংক, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিযাল ফাইন্যান্স অ্যান্ড প্রতিষ্ঠানের লিমিটেড। এর মধ্যে সাউথইস্ট ব্যাংক আগের বছর তুলনায় ৫ % কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। প্রতিষ্ঠানটির গত বছর ২০ % ক্যাশ লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও এ বছর ১৫ % স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আর এতে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের প্রতি অনেকটাই প্রভাব পড়েছে। লভ্যাংশ ঘোষণার আগে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর যেখানে ছিল ১৯.২০ টাকা। লভ্যাংশ ঘষিত হওয়ার পর তা কমে দাড়িয়ে এখন ১৭.৭০ বিডি টাকা। সে হিসেবে লভ্যাংশ ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমেছে এখন ১.৫০ টাকা বা ৭.৮১ %।

এবং সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক আগের বছর তুলনায় ১০ % কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। প্রতিষ্ঠানটির গত বছর ২০ % ক্যাশ লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও এ বছর ১০ % স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আর এতে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের প্রতি অনেকটাই প্রভাব পড়েছে। লভ্যাংশ ঘোষণার আগে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর যেখানে ছিল ১৯.৯০ টাকা। লভ্যাংশ ঘষিত হওয়ার পর তা কমে দাড়িয়ে এখন ১৮.৬০ বিডি টাকা। সে হিসেবে লভ্যাংশ ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমেছে এখন ১.৩০ টাকা বা ৬.৫৩ %।

ন্যাশনাল ব্যাংক আগের বছর তুলনায় ৮ % কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। প্রতিষ্ঠানটির গত বছর ২০ % স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও এ বছর ১২ % স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আর এতে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের প্রতি অনেকটাই প্রভাব পড়েছে। লভ্যাংশ ঘোষণার আগে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর যেখানে ছিল ১১.৯০ টাকা। লভ্যাংশ ঘষিত হওয়ার পর তা কমে দাড়িয়ে এখন ১১.৬০ বিডি টাকা। সে হিসেবে লভ্যাংশ ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমেছে এখন ০.৩০ টাকা বা ০.২৫%।

এদিকে এবি ব্যাংক ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিযাল ফাইন্যান্স অ্যান্ড প্রতিষ্ঠানের লিমিটেড (বিআইএফসি) এ বছর নো লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এবি ব্যাংক গত বছর সাড়ে ১২ % স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও এ বছর বিনিয়োগকারীদের কোন লভ্যাংশ দেয়নি। আর এতে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের প্রতি অনেকটাই প্রভাব পড়েছে। লভ্যাংশ ঘোষণার আগে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর যেখানে ছিল ১৫.৫০ টাকা লভ্যাংশ ঘষিত হওয়ার পর তা কমে দাড়িয়ে এখন ১২ বিডি টাকা। সে হিসেবে লভ্যাংশ ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমেছে এখন ২.৫০ টাকা বা ১৬.১২ %।

বিআইএফসি আগের বছর ন্যায় এ বছরও বিনিয়োগকারীদের কোন লভ্যাংশ দেয়নি। লভ্যাংশ ঘোষণার আগে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর যেখানে ছিল ৯.১০ টাকা। লভ্যাংশ ঘষিত হওয়ার পর তা কমে দাড়িয়ে এখন ৮.৯০ বিডি টাকা। সে হিসেবে লভ্যাংশ ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমেছে এখন ০.২০ টাকা বা ২.১৯ %।