সেল্ফি যখন মরন ফাদ।

প্রযুক্তি।

সেল্ফি আমাদের জীবনের নির্ধারিত একটি অংশ ,অনেকটা এমন বলতে পারি ভাত খাওয়া যেমন অপরিহার্য ঠিক তেমনি দিনে একটা সেল্ফি ও অপরিহার্য, তাই নয় কি?? জানি কেউ ই তা অস্বীকার করতে পারবেন না।কিন্তু জানেন কি আপনার জীবনের এই অপরিহার্য অংশটি আপনার জীবনে মৃত্যু ও বয়ে আনতে পারে!কিভাবে?আসুন বলছি কিভাবে।

আপনি কি জানেন এই পর্যন্ত প্রায় ২৭০ জন মারা গেছে এই সেল্ফি তুলার জন্য।খুব অবাক হচ্ছেন তাইনা?সেল্ফি তুলতে গিয়ে একটা মানুষ কিভাবে মারা যেতে পারে?জ্বি পারে,যখন সেল্ফি তুলার জন্য সে তার জীবনের ঝুকি নেয় এবং দুর্ঘটনাটি তখনি ঘটে।পাহাড়ের কিনারায় অথাবা খাদের পাশে, নদীর পাড়ে,উচু দালান এর ছাদে,রাস্তার মাঝে, গাড়ি চালানো অবস্থায় সেল্ফি তুলতে গিয়েই এত লোকের মৃত্যু হয়েছে।

মেয়েরা সাধারণত বেশি সংখ্যক সেল্ফি তুলে থাকে।

মেয়েরা সাধারণত বেশি সংখ্যক সেল্ফি তুলে থাকে।

কিন্তু মৃতের বেশির ভাগ ই পুরুষ।কারন ছেলেরা নিজেদের সেল্ফিকে আর্কষনীয় করার জন্য পাহাড়ের কিনারা বা নদীর কিনারায় দাঁড়িয়ে সেল্ফি তুলে এবং দূর্ঘটনার সম্মুখীন হন।

ফ্যামিলি মেডিসিন এন্ড প্রাইমারি কেয়ার নামক সংস্থার হিসাব অনুযায়ী প্রায় ২৫৯ জনের মৃত্যু ঘটেছে সেল্ফি তোলার কারনে।

ফ্যামিলি মেডিসিন এন্ড প্রাইমারি কেয়ার নামক সংস্থার হিসাব অনুযায়ী প্রায় ২৫৯ জনের মৃত্যু ঘটেছে সেল্ফি তোলার কারনে।

এবং এই মৃতের সংখ্যা ভারতে সবচে বেশি,এর পর যথাক্রমে রাশিয়া,আমেরিকা এবং পাকিস্তান।

২০১১ সালের পর থেকেই এই ধরনের মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।বেশির ভাগ (প্রায় ৭২%) মৃতের বয়স ত্রিশ বছরের কম।

প্রায় দশজন মারা যায় হিংস্র পশুর সাথে সেল্ফি তুলতে গিয়ে।আর প্রায় এক তৃতীয়াংশ মানুষ মারা যায় উচু কোন জায়গা থেকে পরে যেমন পাহাড়,খাদ,উচু দালান ইত্যাদি।

বেশির ভাগ মৃত ই ডুবে মারা গিয়েছে।দেখা যায় তারা নদীর কিনারায় কিংবা নৌকার কোনায় দাঁড়িয়ে সেল্ফি তুলা অবস্থায় মারা যায়।

কিছু মানুষ মারা গেছে গাড়ি চালানোর সময় সেল্ফি তোলার জন্য।

বর্তমান যুগ এর রীতি হচ্ছে,'Be Cool'.আর এই কুল দেখাতে কি শেষ পর্যন্ত নিজের জীবন বিলিয়ে আসে।

সবাই সেলফি তুলতে বেস্ত, অন্য দিকে তাদের এক বন্ধু পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে সেদিকে খেয়াল নেই।

সবাই সেলফি তুলতে বেস্ত, অন্য দিকে তাদের এক বন্ধু পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে সেদিকে খেয়াল নেই।

কিছু দেশের পর্যটক কেন্দ্র গুলোতে নো সেল্ফি জোন এর সৃষ্টি করা হয়েছে,যাতে সেইসব স্থানে দর্শনার্থী না যায়। এইভাবেই যদি কিছু দূর্ঘটনা হ্রাস করা যায়।