সটীক উপায়ে নেহারি রান্নার আসল কৌশল।

ঈদ মানেই আনন্দ, আর সেই আনন্দ একটু. . .

ঈদ মানেই আনন্দ, আর সেই আনন্দ একটু বাড়িয়ে তুলতে খাওয়া দাওয়ার জুরি নেই, নেহেরি পছন্দ করেন না এমন লোক খুজে পাওয়া ভার বাংলার মাটিতে।  যেহেতু কোরবানি আসলেই নেহেরি খাওয়ার একটা ধুম পরে যায়। তাই আপনি যদি সটীক ভাবে নান্না করাটা না জানেন তাহলে এত মজার একটি রান্না বিশাদ মনে হতে পারে।  চলুন তবে কিভাবে নেহেরি রান্না করা যায় তা আপনাদের জানিয়ে দিচ্ছি।

/
প্রথমে আপনাকে গরুর পা গুলো সাইজ মত টুকরা টুকরা করে কেটে ভাল করে ধুয়ে একটা বড় কড়াইয়ে নিন। সামান্য লবণ ও তেজপাতা দিয়ে ডুবো পানিতে ভাল করে জ্বাল দিতে থাকুন। 


জ্বাল দেয়ার এক পর্যায়ে এমন দেখাবে। তারপর পায়া জ্বাল দিলে শেওলার মত সবুজ/কালছে কিছু ময়লা বের হয়। তখন চামচ দিয়ে এগুলো ফেলে দিতে হবে এবং এক পর্যায়ে পানি কমে গেলে আরো কিছু পানি দিতে হবে।


জ্বাল চলতে থাকুক। এই ফাঁকে আপনি মশলা নিয়ে পুরোপুরি মাঠে নামুন! নীচের লিষ্ট অনুসারে মশলা সমূহ এক বাটিতে করে ফেলুন। চারটি গরুর পায়ার জন্য এমন অনুপাতে হতে পারে।

হলুদ – আধা চামচ
মরিচ – আধা চামচ
আদা – ২ চামচ
পেঁয়াজ – ৩ চামচ
রসুন – ২ চামচ
জিরা – ১ চামচ
ধনে গুড়া – ১ চামচ
কাঁচা মরিচ – ৬/৭ টা
(আমরা পেঁয়াজ, আদা, রসুন, কাঁচা মরিচ গাইন্ড করে নিয়েছি)

তেজপাতা – ৩/৪ টা (আগে ব্যবহার হয়েছে)
এলাচ – ৪/৫ টা
দারুচিনি – ৪/৫ টুকরা
তেঁতুল – আধা কাপ
লবণ – পরিমান মত (শেষ বারে লবণ দিতে মনে রাখবেন, প্রথমে একবার দেয়া হয়েছিল)

পেঁয়াজ কুচি – বেরেস্তার জন্য
তেল – কয়েক চামচ, বেরেস্তার জন্য।

নেহারিতে মশলা কম দেয়া হয় যাতে করে ঝোল পাতলা হয় অনেকটা স্যুপের মত করার জন্য এবং তেতুলের ব্যবহার করা হয় যাতে করে ঝোল পানির মত হয়। 


পায়া ভাল করে সিদ্ব (ঘণ্টা ২ লাগবেই) হলে সব মশলা দিয়ে দিন। এলাচ, দারুচিনি ও তেঁতুল সহ।


আরো কিছু পানি দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে আবার জ্বাল দিতে থাকুন। ঢাকনা দিয়ে মনের আনন্দে টিভি দেখতে থাকুন।


এখন ইউটিউব এ রান্না বিষয়ক অনেক ভিডিও আছে। দেখে নিতে পারেন।


কিন্তু জনাব বা জনাবা শুধু টিভি নিয়ে বসে থাকলে চলবে না। মাঝে মাঝে গিয়ে দেখে আসতে হবে। পানি কমে গেলে আবার পানি দিতে হবে। যতক্ষন না সব কিছু আপনার মনের মত হচ্ছে। লবণ দেখুন, লাগলে দিন।


অন্য একটা কড়াইতে তেল ঢেলে পেঁয়াজ কুচি ভাজে নিন সুন্দর করে। বেরেস্তা বানান।


পায়ায় বেরেস্তা দিয়ে দিন (বাগার মারুন) এবং আরো কিছু ক্ষন জ্বাল দিন।


ব্যস হয়ে গেল, সুস্বাদু নেহারি। এখন চেতে পুটে চালের রুটি বা পুরি সাদা রুটি বা পরটা দিয়ে খেতে পারেন। ধন্যবাদ।

নেহারি রান্না