যে ৬ টি অভ্যাস পালটে দিতে পারে আপনাকে

সব মানুষই চায় সবাই তাকে পছন্দ করুক, কিন্তু সব ক্ষেত্রে এটা সবাই ফুটিয়ে তুলতে পারে না।

সব  মানুষই চায় সবাই তাকে পছন্দ করুক, ভালবাসুক। এইজন্য নিজেকে সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করা খুবই জরুরি। কারো সাথে প্রথম দেখায় আপনার বাচন ভঙ্গি থেকে শুরু করে পোশাক, সবই সে খেয়াল করে। আপনার পরিচয়, কাজের ক্ষেত্র সবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে নিজেকে সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করতে পারলে সকলেই আপনাকে পছন্দ করবে। তাই আমরা তুলে ধরছি একজন পছন্দনীয় মানুষের কিছু সাধারন অভ্যাসের ইতিকথা। যা আপনাকে সকলের পছন্দের পাত্র করে তুলবে।



১. নিজেকে সাধারণ ভাবে উপস্থাপন করুনঃ
মানুষের সাধারণ প্রবৃত্তি হল প্রথম দেখায় নিজেকে সেরা প্রমাণ করা। এইজন্য অপর জনের সাথে প্রতিযোগিতা শুরু করে দেয়। তবে এটা আপনাকে শুধু ছোটই করবে। এই আচরন অনেকটা শিশুসুলভ। তাই সস্তা প্রতিযোগিতায় না গিয়ে খুব সাধারণ ভাবে নিজেকে উপস্থাপন করুন। স্বাভাবিক কথাবর্তা বলুন। অন্যের ভাল দিকের প্রশংসা করুন। সাধারণ আপনাকেই সকলে পছন্দ করবে।


২. পরিমিত সুগন্ধি ব্যবহার করুনঃ
সুগন্ধ সকলেই পছন্দ করে। তাইতো দুনিয়াব্যাপি এত রকম সুগন্ধির প্রচলন। তবে কড়া গন্ধ যুক্ত সুগন্ধি অন্যের মাথাব্যথার কারন হয়ে দাড়ালে উল্টা প্রতিক্রিয়া হবে। তাই হাল্কা সুগন্ধি ব্যবহার করুন। এটা অন্যের কাছে ভাল একটা ইমেজ দাড়া করাতে সহায়তা করবে। একটু দাম দিলেই ভাল ভাল ব্র্যান্ডের হাল্কা সুগন্ধি পাওয়া যায়। ব্যাক্তিত্বের জন্য একটু খরচ করাই যায়।


৩. স্পর্শে আপন করুনঃ
মানুষের নিকটে যাওয়ার ভাল উপায় তার সাথে কোলাকুলি, মোলাকাত অথবা আবেগের বহিপ্রকাশ হিসেবে তার কাঁধে বা পিঠে হাত রেখে কথা বলা। এতে আপনার প্রতি অন্যের আগ্রহ সৃষ্টি হবে। তবে অহেতুক স্পর্শ ভালোর চেয়ে খারাপই বেশি করবে। মনে রাখবেন, স্বাভাবিক আচরন মুখ্য বিষয়।



৪. আলাপের সময় নিজেকে প্রকাশ করুনঃ
ভাব গাম্ভির্য খারাপ কিছু নয়। ছেলে মেয়ের মধ্যকার পরিচয় পরিনয়ে এটা অনেক সময় প্রভাব ফেলে। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে নিজেকে প্রকাশ করাই ভাল। ভাব গাম্ভির্য অন্যের থেকে আপনাকে আলাদা করে রাখবে। দুরুত্ব তৈরি হবে। তাই আলাপের সময় নিজেকে প্রকাশ করুন। আরেকটা ব্যাপার, আপনি যদি সানগ্লাস ব্যবহার করেন, আলাপের সময় তা খুলে ফেলুন।


৫. নখের যত্ন নিনঃ
মানুষের সাথে মেলামেশার সময় সর্বদা নিজের নিখের দিকে খেয়াল রাখুন। নখের যত্ন নিন। কে চাইবে ময়লা নখের ব্যক্তির সাথে করমর্দন করতে? পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ব্যক্তিকে সকলেই পছন্দ করে।


৬. বুঝে-শুনে কথা বলুনঃ
অন্যদের সাথে আলাপের ক্ষেত্রে বুঝে-শুনে কথা বলুন। অযথা কথা না বলাই শ্রেয়। অযথা কথা বলতে গেলে হয়ত বিরিক্তিকর কিছু বলবেন, অথবা অন্যকে আঘাত করে বসবেন। একদম কিছু বলার না থাকলে অন্যের কথা শুনুন। মাঝে মাঝে প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করুন।