যে ৫টি উপায়ে ফিরে যেটে পারেন আপনার শৈশব এ

ছোটবেলায় ফিরে যেটে কার না মন চায়, বাস্তবে শৈশব এ ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়, কিন্তু এমন কিছু ব্যাপার আছে যা করলে হয়তো আপনি ফিরে ও যেটে পারেন আপনার সেই সব সোনালি শৈশব এ

১ঃ অনেকেরই প্রিয় ছিল এই রিমোট কন্ট্রোল গাড়িটি।

১ঃ  অনেকেরই প্রিয় ছিল এই রিমোট কন্ট্রোল গাড়িটি।

ছোটবেলার খেলনা গুলো কিনে ফেলুন আবার, হতে পারে পুতুল, হতে পারে রিমোট কন্ট্রোল গাড়ি,

চিন্তায় পরে গেলেন? এটা কি করাঠিক হবে? ভাবার কিছু নেই! শৈশবের আমেজ ফিরে পেতে ছোট বেলার প্রিয় খেলনা কিনে 

ফেলাএকটি কার্যকরী উপায়। আর এরই সাথে আপনি ফিরে যাবেন আপনার ছোটবেলার সেই সব দিনে

রোবট

রোবট

হি -ম্যান

হি -ম্যান

২ঃ ঘুরে আসুন আপনার প্রিয় স্কুলে

২ঃ ঘুরে আসুন আপনার প্রিয় স্কুলে

স্কুল জীবনের কিছু অদ্ভুত মজারস্মৃতি থাকে সবার। তারপর স্কুল জীবন শেষ হওয়ার পর সেই স্মৃতিগুলোতে আসতে আসতে মুছেযেতে থাকে যান্ত্রিক জীবনের পাল্লায় পরে । ছোট বেলার আমেজ ফিরে পেতে ঘুরে আসতেপারেন আপনার প্রিয় স্কুলটি থেকে। স্কুলের পুরোনো শিক্ষক শিক্ষিকাদের সাথে দেখা করেস্কুল জীবনের আমেজটা কিছুক্ষণের জন্য হলেও ফিরে পাবেন। সম্ভব হলে আপনার সহপাঠীদেরওনিয়ে যান। তাহলেই ফিরে যতে পারবেন আপনার স্কুল জীবনের।

৩ঃ লুডু

৩ঃ লুডু

প্রিয়৪ জন বন্ধুদের নিয়ে বসে যেতে পারেন আপনার সেই ছোটবেলার লুডু খেলায় , মাঝে মাঝে ৬ মারার জন্য কিছু চুরি ওকরতে পারেন। যদি বন্ধুদের কাছে ধরা না পরেন। এই খেলায় আপনাকে নিয়ে যাবে ক্ষণিকেরজন্য হলে ও সেই  হারানো শৈশবে

৪. শৈশবের অ্যালবাম

৪. শৈশবের অ্যালবাম

আমাদের সবার সব বাড়িতেই পুরোনো অ্যালবাম গুলো আছে

অ্যালবামটি দেখুন। দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকা এই ছোট বেলার ছবি গুলোই আপনাকে আপনার হারানো শৈশবেফিরিয়ে নিয়ে যাবে। ছোট বেলার বিভিন্ন মজার বন্ধুদের ছবি, দুষ্টামির ছবি কিংবা মা বাবার কোলে বসে থাকারছবি দেখে আপনার যান্ত্রিক জীবনে আনুন প্রশান্তির। অন্তত কিছুক্ষণের জন্য হলেও ফিরেযান নিজের ছোট শৈশব এ

৫. ছোটবেলার বন্ধুদের সাথে আড্ডা

৫. ছোটবেলার বন্ধুদের সাথে আড্ডা

আমরা সবাই জানি ছোট বেলার বন্ধুরাই প্রকৃত বন্ধু। কারণ ছোট বেলার বন্ধুত্বতে কোন স্বার্থ থাকে না। কিন্তু আমাদের জীবনের তাগিদে যোগাযোগ হয় না সেই সব শৈশবের বন্ধুদের সাথে, সময় পেলেই আড্ডা শুরু করুন সেই সব বন্ধুদের নিয়ে, কিছুটা হলেও ফিরে যাবেন ছোটবেলায়। আড্ডার বিষয় হিসেবে ছোট বেলার বিভিন্ন বিষয় গুলোকে তুলে ধরুন। নিজেদের মজার মজার স্মৃতি গুলো মনে করতে করতে অন্তত কিছুক্ষণের জন্য হলেও নিজের শৈশবটাকে ফিরে পাবেন।