পৃথিবী যখন ধ্বংসের মুখে।

বিশ্ব খবর।

পরিবেশ বিপর্যয় এর সাথে আমরা সবাই সম্পর্কযুক্ত। একজন ব্যাক্তি বা প্রানী নেই যারা এই পরিবেশ বিপর্যয় এর শিকার নয়।প্রতিটি দিন নতুন নতুন করে পরিববেশ এর বিপর্যয় ঘটছে।কত বন্যপ্রাণী বিলুপ্ত হচ্ছে তার হিসাব হয়তো আমরা জানতেও পারছিনা।আর মানুষ এর কাজকর্মেই আরো পরিবেশ বিপর্যয় ঘটে চলেছে।

পরিবেশ বিপর্যয় এর বড় লক্ষন হচ্ছে তাপমাত্রার বৃদ্ধি।প্রতিনিয়ত ই পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে।এই তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য প্রানী গাছপালা মানুষ এর জনজীবন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।বন্যপ্রাণী গাছপালা দিনদিন বিলুপ্ত হচ্ছে।এই পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষার জন্য বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত অনেক পদক্ষেপ গ্রহন করেছে।সম্প্রতি প্যারিসে প্রায় ২০০ টি দেশ জলবায়ু রক্ষার জন্য একটি পদক্ষেপ এ অংশগ্রহণ করেছে।তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছে পৃথিবীর তাপমাত্রা প্রায় ১.৫-২ ডিগ্রি হ্রাস করতে হবে।

সাধারণ মানুষ এর কাছে দুই ডিগ্রি বৃদ্ধি কোন আহামরি কিছুইনা, কারন তারা দুই ডিগ্রি বৃদ্ধির প্রভাবগুলো জানেনা।০.৫ ডিগ্রি বৃদ্ধির ফলে কত গাছপালা নষ্ট হতে পারে, এমনকি মানুষ এর মৃত্যু অব্দি হতে পারে।

এই তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে সমুদ্র এর পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে দিনদিন।আবহাওয়া বিশ্লেষকরা পরিবেশ বিপর্যয় এর দিকগুলোই বারবার জন সাধারনকে বুঝানোর চেষ্টা করতেছে।এরজন্য এত সম্মেলন,এত পদক্ষেপ।শুধুমাত্র এই পৃথিবীকে বাসযোগ্য করে রাখার জন্য।এখন পর্যন্ত আমাদের কর্মকান্ডের জন্য প্রায় ১ডিগ্রী তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে।এভাবে চলতে থাকলে ২০৩০-২০৫২ সালের মধ্যে পৃথিবীর অর্ধেক অংশ ডুবে যাবে এবং তাপমাত্রা প্রায় দ্বিগুন বৃদ্ধি পাবে।এবং সমুদ্রে প্রানীর পরিমান ৮০% কমে যাবে।

আপনি জানেন কি,ডোলান্ড ট্রাম্পের এত উন্নত দেশ আমাদের পৃথিবী দূষন এর মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। তাই আসুন এখনি সময় আগামী প্রজন্মকে একটি সুন্দর ও বিশুদ্ধ পৃথিবী উপাহার দেই।

এই অন্তরীক্ষ দৃশ্যটি মূলত রোন্স হিমবাহ এবং হিমবাহ হ্রদ।ছবিটি তোলা হয়েছে gletsch এর কাছ থেকে,৬ই আগস্ট ২০১৮