না জানার কারনে যে ক্ষতিগুলো হচ্ছে আপনার

আসছে গিস্মকাল করকরে রোদে এক গ্লাস ঠাণ্ডা পানি, আহহহ যেন. . .

আসছে গিস্মকাল করকরে রোদে এক গ্লাস ঠাণ্ডা পানি, আহহহ যেন শান্তি, কিন্তু এই শান্তি এবার অসান্তির কারন হতে পারে, হতে পারে আপনার দেহের ভয়াবহ ক্ষতি। এর ফলে শরীরের স্বাভাবিক কার্যক্ষমতায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। বিশেষ করে খাবারের সঙ্গে বরফ ঠান্ডা পানি বা আইস ড্রিঙ্ক খেলে তা আপনার পরিপাকের কাজে বাধা হয়ে দাড়ায় সাথে শরীরও খারাপ করে দেয়। বিস্তারিত চলুন দেখে  কি কি ক্ষতি হতে পারে আপনার।

গলা ব্যথা

গলা ব্যথা

গিস্মকালে বরফ ঠান্ডা আপনি আমরা অনেকই খেতে খুব পছন্দ করি, কিন্তু এর ফলে হতে পারে গলা ব্যথা, এর ফলে নাক বন্ধ হয়ে যাওয়ার অনেক ঝুঁকি থাকে। তাছাড়া শ্বাসনালীতে মিউকাস জমতে সাহায্য করে। ফলে শ্বাসনালীতে যন্ত্রণা ভুগতে পারেন।

ফ্যাট বাধাগ্রস্ত করে

ফ্যাট বাধাগ্রস্ত করে

খাওয়ার সাথে সাথে হুট করে বরফ শিতল পানি খেলে তা খাবারে থাকা ফ্যাট জমিয়ে দিতে পারে। যারফলে আপনার শরীরের ফ্যাট হজম হতে বাধা পায় এবং শরীরে মেদ জমতে থাকে। তবে শুধু ঠান্ডা পানি নয়, এমনিতেই খাওয়ার ঠিক পরই পানি খাওয়া একদম উচিত নয়। হালকা একটু গলা ভিজিয়ে অন্তত ৩০ মিনিট পর পানি পান করা উচিত।

হার্ট রেট

হার্ট রেট

কিছু গবেষকরা দেখা গেছে, ঠান্ডা আপনি হার্ট রেট অনেক খানি কমে যেতে পারে।এমনকি বরফ ঠান্ডা আপনি ১০ম কার্নিয়াল নার্ভকে উত্তেজিত করায়। 

নিয়মিত যারা জিম করেন

নিয়মিত যারা জিম করেন

যারা নিমিমিত জিম করেন তাদের জন্য বলছি, একটু হাঁপিয়ে গেলে আমরা অনেকেই ঠান্ডা পানি খেয়ে ফেলি। কিন্তু ব্যাপারটা মটেও ঠিক নয়,। জিম এক্সপার্টরা ওয়ার্কআউটের পর হালকা গরম পানি খেতে বলেন।তার কারণ এক্সারসাইজের পর শরীরের সব পেশীর তাপমাত্রা বেড়ে যায় যায়। এই সময় বরফ ঠান্ডা আপনি খেলে শরীরের পৌষ্টিকনালীতে প্রভাব ফেলে। উপরন্তু, আপনার শরীরে তখন ঠান্ডা পানি শোষণ করতে পারে না। এছাড়া পেটে কষ্টদায়ক ব্যথা হতে পারে।