ছুটির দিনে তৈরি করুন মজার কিছু রান্না

মূলত যারা চাকির করেন শুক্রবার তাদের জন্য বিশেষ একটি দিন বটে। সারা সপ্তাহ কর্মব্যস্ত সময় পার করার পর। এই দিনটি আপনাকে একটু শারীরিক বিশ্রাম দেয়, আর আপনি যদি একটু ভোজনরসিক মানুষ হয়ে থাকেন তবে কিছু মজার রান্না করতে পারেন। আসুন দেখেনি ছুটির দিনে মজার কিছু রান্না

মুরগির মজাদার দোপেয়াজা

মুরগির মজাদার দোপেয়াজা

উপকরণ যা লাগবে

মুরগি অথবা মোরগ ১ কেজি হলে ভাল হয়,পেঁয়াজ কিউব করে কাটা ২কাপ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুড়া আধ চা চামচ বা তারও কম, মরিচ গুড়া ১ চা চামচ, এলাচি ৪/৫ টি, দারুচিনি ১ ইঞ্চির ৩/৪ টুকরা, আস্ত কাঁচামরিচ ৪/৫ টা, লবণ পরিমাণমতো, তেল হাফ কাপের চেয়ে কম (দুই ধাপেএই তেল ব্যবহার করতে হবে), ৪টেবিল চামচ টমেটো সস।

প্রণালী
এটি দুই ধাপের রান্না করা যায়। প্রথম ধাপে মোরগের মাংস ভেজেনিতে হবে এবং দ্বিতীয় ধাপে রান্না। মোরগ কেটে ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে। অল্প হলুদ গুড়া সাথে এবং লবণ দিয়ে মেখে ৫ থেকে ১০মিনিট রেখে দিন। ফ্রাইপ্যানে কিছু তেলগরম করে মোরগের মাংস ভাজতে থাকুন। কিছু সময়ের জন্য ঢাকনা দিতে ভুলবেন না, এতে মাংস নরম হয়ে যাবে এবং মাংসথেকে পানি বের হয়ে যাবে। এবার মূল রান্নায় আসা যাক। ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করেপেঁয়াজ সামান্য লবণ দিয়ে ভাজুন। সঙ্গে কয়েকটা কাঁচামরিচ, দারুচিনি এবং এলাচ দিয়ে দিন। আদাবাটা, রসুন বাটা দিয়ে দিন। এরপর মরিচগুড়া এবং হলুদ গুড়া দিয়ে দিন।

আধকাপ পানি দিয়ে ভালকরে কষিয়ে নিন। কিছুক্ষণের মধ্যেই তেল উপরে উঠে আসবে। হয়ে গেল ঝোল। ঝোলে আগে ভেজে রাখা মাংস দিয়ে দিন। ভাল করে মিশিয়ে আরো এক কাপ পানি দিন। ঢাকনা দিয়ে মিনিট ১৫মাঝারি আঁচে রেখে দিন। মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিতে ভুলবেন না। এবার টমেটো সস দিয়ে দিনএবং মিশিয়ে নিন। ঢাকনা দিয়ে আরো কিছু সময়ের জন্য রাখুন। কয়েকটা আস্ত কাঁচামরিচদিতে পারেন। ঝোল কমে গেলে আগুন বন্ধ করে কিছু সময়ের জন্য ঢেকে রাখুন। ব্যসপরিবেশনের জন্য প্রস্তুত মোরগ দোপেয়াজা। গরম ভাত বা রুটির সঙ্গে খেতে ভালো লাগবে।

ছুটির দিনে মেহমানদের জন্য তৈরি করতে পারেন বাসমতি চালের বিফ বিরিয়ানি

ছুটির দিনে মেহমানদের জন্য তৈরি করতে পারেন বাসমতি চালের বিফ বিরিয়ানি

উপকরণ:
গরুর মাংস লাগবে দেড় কেজি, বাসমতি চাল দুই কাপ,

কালো এলাচ দুটি

সাদা এলাচ চার পাঁচটি

লবঙ্গ—পাঁচ/ছয়টি
গোলমরিচ—আট/দশটি
কাবাব চিনি—তিন/চারটি
দারুচিনি—একটি
তেজপাতা—দুটি
ধনে গুঁড়া—আধা চা চামচ
আস্ত জিরা—আধা চা চামচ

মরিচ গুঁড়ো- আধা চা চামচ
লবণ—স্বাদমতো
দই—আধা কাপ
কেওড়া জল—দুই চা চামচ
তেল—পরিমাণমতো
পেঁয়াজ কুচি—আধা কাপ
আদা বাটা—এক চা চামচ
রসুন বাটা—আধা চা চামচ
কাঁচামরিচ—সাত/আটটি
ঘি—তিন চা চামচ
লেবুর রস—এক চা চামচ
পেঁয়াজ বেরেস্তা—আধা চা চামচ
চিনি সামান্য

তৈরির করার নিয়ম:
প্রথমে একটি পাত্রে আপনাকে তেল  গরম করে তার সাথে পেঁয়াজ কুচি বাদামি করে ভেজে মাংসসহ (দই, চিনি, কেওড়া জল, ঘি, পেঁয়াজ, বেরেস্তা, কাঁচামরিচ বাদে) সব মসলা দিয়ে কষিয়ে রান্না করুন।

রান্নার শেষের দিকে দই, চিনি দিয়ে আরো কিছুক্ষণ রান্না করে ঝোল মাখা মাখা হলে নামিয়ে ফেলুন।

এবার অন্য একটি প্যানে বা রাইস কুকারে বাসমতিচাল, স্বাদমতো লবণ, তিন চা চামচ ঘি, লেবুর রস আর পরিমাণমতো পানি দিয়ে রাইস রান্নাকরে নিন।

রাইস রান্না হয়ে গেলে কিছু রাইস তুলে নিয়ে বিফ ঢেলে দিয়ে পেঁয়াজ, বেরেস্তা, ঘি, কাঁচামরিচ ছিটিয়ে দিয়ে বাকি রাইসটা ওপর থেকে দিয়ে দমে রাখুন ২০/৩০ মিনিটের মতো। রাইস কুকারে করলে অন করে দিতে হবে।

প্রায় ২০/৩০ মিনিট পর রাইসটা হালকা হালকা করে মিক্স করে নিলে হয়ে যাবে মজাদার বাসমতি চালের বিফ বিরিয়ানি।

স্পেশাল পঞ্চবর্তি খিচুরি

স্পেশাল পঞ্চবর্তি খিচুরি

তৈরির করার নিয়ম:

পোলাওয়ের চাল আধা কেজি

২০০গ্রাম ডাল মুগ, মসুর, বুট একসঙ্গে,১০০ গ্রাম ঘি, ১০০ গ্রাম আলু ছোট করে কাটা,

১০০ গ্রাম গাজর কুচি, ২০০ গ্রাম হাড় ছাড়া মাংস ভুনা, ৫০ গ্রাম মটরশুঁটি,

 ২০০ গ্রাম পিঁয়াজ কুচি, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ,

 আদাবাটা ১ চা চামচ, আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়ো,

আধা চা চামচ মরিচ গুঁড়ো, ৫ টি কাঁচা মরিচ,

 লবঙ্গ-এলাচ-দারুচিনি ওতেজপাতা ২ টি করে, শুকনো মরিচ ৩ টি, লবণ স্বাদমতো।

যেভাবে করবেন

সর্ব প্রথমে আপনাকে যেটা করতে হবে ডাল ধুয়ে একটি পাত্রে ফুটাতে দিতে হবে। আধা সেদ্ধ হয়ে গেলে নামিয়ে আনুন। অপর একটি প্যানে ঘি গরম হলে গরম মসলা, পিঁয়াজ কুচি, আদাবাটা, রসুনবাটা, কাঁচা মরিচ, হলুদ, লবণ দিয়ে ভালো করে নেড়ে কষাতে থাকুন। মসলা কষে এলে ধুয়ে রাখা চাল, ডাল, সবজি, মাংস ও তেজপাতা দিয়ে নাড়তে থাকুন। চাল ভাজা ভাজা হলে পরিমাণ মতো পানি দিন। পানির আন্দাজ না বুঝলে অল্প করে বার বার দিতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন, খিচুড়ি যেন ঝরঝরা হয়।এবার মৃদু আঁচে ১৫ মিনিট ঢেকে রান্না করুন। প্যানের নিচে পোড়া ঠেকাতে মাঝে মাঝে খিচুড়ি নেড়ে দিতে হবে। খিচুড়ির চাল, সবজি সেদ্ধ হয়ে এলে নামিয়ে এনে পরিবেশন করতে পারেন।  

আজকের আমার ছুটির দিন মজার সব রান্না হবে তাক ধিনা ধিন

আজকের আমার ছুটির দিন মজার সব রান্না হবে তাক ধিনা ধিন

কেউ আসার আগেই খেয়ে কেটে পরি

কেউ আসার আগেই খেয়ে কেটে পরি

ছুটির দিনে তৈরি করুন মজার কিছু রান্না ছুটির দিনে মজার রান্না