এক ঐতিহাসিক গোফ কাহিনী।

সারা বিশ্ব।

গোফ অনেক পুরুষের কাছে আভিজাত্য এর প্রতীক।কিন্তু জানেন কি এই গোফ আপনাকে বিখ্যাত ও বানাতে পারে।কি বিশ্বাস হচ্ছেনা?তাইলে আসুন এক ঐতিহাসিক গোফের কাহিনী শুনিঃ ভারতের রাজস্থানের অধিবাসী রাম সিং চৌহান।হঠাৎ তার মনে এক নতুন ইচ্ছার উদয় হলো।সে ঠিক করল সে তার গোফ আর কাটবেন না।এটাকে বড় করবেন।দেখতে চান তাকে কেমন দেখায়।একটু পাগলামি ইচ্ছা তাই নয় কি ?১৯৭০ সাল থেকে শুরু করলেন তার এই পাগলামি।তার বউ ত তখন অনেক ক্ষেপা।

সারাদিন রাত চিল্লাতো তার এই পাগলামির জন্য।এই গোফের যত্ন নেয়ার জন্য সে তার সব কাজ কর্ম বাদ দিল।বউ ত আরো ক্ষেপল।বাপের বাড়ি চলে যাবার হুমকি অব্দি দিল।কিন্তু রাম সিং তার জিদ ছাড়লেন না।যখন তিনি রাস্তায় বের হতেন সবাই তার দিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকত।মানুষ এর অবাক দৃষ্টি তাকে আরো উৎসাহিত করল।দিন রাত আরো যত্ন নেয়া শুরু করল।ধীরে ধীরে পরিচিতি লাভ করল।দূর থেকে তাকে দেখার জন্য মানুষ আসতে লাগল।আশেপাশে র গ্রাম ছাড়াও অন্যান্য শহরের মানুষ ও তার উপর কৌতুহল দেখানো শুরু করল।রাম সিং এসব খুব উপভোগ করতে লাগল।তার খ্যাতি পাওয়ার পর তার বউ কিছুটা শান্ত হল।

সবাই এখন তাকে গোফওয়ালার বউ নামে চিনে। রাম সিং এর গোফ লম্বায় ৪.৩০ মিটার।প্রথম প্রথম গোফের আগা ছাটলেও তিনি ১৯৮২ সালের পর তা আর কাটেন নি।তার এই বিশাল আকারের গোফ টি এখন গিনিস বুকস এর রেকর্ডের অন্তুর্ভূক্ত। তার এই গোফের খ্যাতি শুধু দেশেই না বিদেশেও ছড়িয়ে পড়েছিল।এমনকি সিনেমাতেও অভিনয় এর সুযোগ হয়েছিল,তাও আবার হলিউড মুভিতে।বড় বাজেটের একটি হলিউড মুভিতে তিনি কাজ করেছিলেন যার মূল চরিত্রে ছিলেন রজার মোর।এছাড়াও কিছু বলিউড মুভি তিনি করেন।আর বিভিন্ন দেশ থেকে তার গোফের প্রদর্শনীর জন্য যান। কি ভাবছেন এখন?আপনিও এমন গোফ বড় করবেন?করতে পারেন।কে জানে আপনার নাম ও গিনিস বুক রের্কড এ উঠে গেল।

লেখিকাঃ নওশীন জাহান।