আইসক্রিম এর জন্মকথা।

খাদ্য।

আইসক্রিম, এই নাম টি শুনলেই মুখ দিয়ে আহা শব্দটি বের হবেই।কেউ কি আছে এই দুনিয়ায় যে আইসক্রিম পছন্দ করেনা।বাচ্চা থেকে শুরু করে আশি বছরের বুড়োও আইসক্রিম কে মানা করতে পারবেন না।আমাদের এত পছন্দের জিনিস এর উদ্ভাবন কিভাবে তা কি কখনো আমরা ভেবেছি?আমার এত পছন্দের জিনিস এর জন্ম হলো কিভাবে!!এখন মনে আসছে না এই প্রশ্ন টি? স্বাভাবিক। আপনাদের এই প্রশ্নের জবাব ই দিতে এই আর্টিকেলটি।

আইসক্রিম কে একেক দেশে একেক নামে ডাকা হয় যেমন ঠান্ডা,বরফের গোলা,জমানো ক্রীম,সরবেট,জেলাটো ইত্যাদি।

বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন ভাবে আইসক্রিম এর উদ্ভাবন হয়েছে। তবে চলুন জেনে নেই কিছু মজার তথ্য।

পারশিয়া

পারশিয়া

পারশিয়া তে প্রায় ৫০০ BC এর কাছাকাছি সময়ে এই খাদ্যের উদ্ভাবন হয় পারশিয়ীয় সম্রাটদের মধ্যে।তারা জাফরান,বিভিন্ন ফল এবং সেমাই এর সংমিশ্রণ এ এক ধরনের জমাট বাধা ঠান্ডা খাদ্য বস্তু তৈরী করে।এটি সাধারণত তারা গরম সময়ে বানাত।

প্রাচীন গ্রিস

প্রাচীন গ্রিস

উনিশ শতকে গ্রিসের রাজধানী এথেন্স এ বরফের মধ্যে মধু, বিভিন্ন রং,এবং ফলের সমন্বয় এ একটি ঠান্ডা বস্তু বিক্রি করা হত।হিপোক্রেটিস তৎকালীন সময়ে এটি খাওয়ার জন্য সবাইকে উৎসাহিত করেন।বরফের সাথে বিভিন্ন ফলের মিক্সচার সবার কাছেই জনপ্রিয় হয়।

চায়না

চায়না

চায়নার সম্রাট প্রায় ৩০০ BC রা বরফ আর চালের সমন্বয় এ একটি রাজকীয় ঠান্ডাই বানাই।এর সাথে বিভিন্ন ফ্লেভার এর সিরাপ, ফল মিক্সড করে রাজকীয় ঠান্ডাই আরো রাজকীয় করা হয়।

(প্রথম অংশ)


লেখিকাঃ  নওশীন জাহান