খেলার খবর।
অস্ট্রেলিয়া সাথে পরাজয়ের পর যা বল্লেন কোহলি।

এক পা দুই করে চলে আসতেছে বিশ্বকাপ। মে মাসের ৩০ তারখি। কথা হচ্ছে এবার ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফেবারিট কারা? এমন প্রশ্নে আপনার মাথায় আসতে পারে নাম-ইন্ডিয়ান আর ইংল্যান্ড।

বলা যায় সহজেই ভারত বছরজুড়েই দুর্দান্ত ফর্মে ছিল। আর পিছিয়ে নেই ইংল্যান্ডও। তার উপর ইংল্যান্ডের ঘরের মাঠে খেলা। তাই এই দলের বাড়তি সুবিধাও দেখছেন ক্রিকেট বিশ্লেষক থেকে শুরু করে সমর্থকরা।

অস্ট্রেলিয়াও এই তালিকায় থাকার কথা ছিল। সবচেয়ে বেশি (পাঁচবার) বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন তারা। কিন্তু স্টিভেন স্মিথ আর ডেভিড ওয়ার্নারের মতো বড় দুই তারকা এক বছর ধরে বাইরে থাকায় এই দলটি অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার এই দুর্বলতা অবশ্য গত এক বছরে। সর্বশেষ সিরিজটিকে এই তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। বিশ্বকাপের আগমুহূর্তে এসে ভারতের মাটি থেকে রীতিমত অসাধ্য সাধন করে ফিরছে ক্যাঙ্গারুরা। টি-টোয়েন্টি সিরিজে স্বাগতিকদের হোয়াইটওয়াশের পর ওয়ানডে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকেও সিরিজের ট্রফি হাতে তুলেছে অ্যারন ফিঞ্চের দল।

এই অস্ট্রেলিয়ার কাছে এভাবে ধাক্কা খাবে, সেটি বোধ হয় ভাবেনি ভারত। হারের পর তাদের টনক নড়েছে। বিশ্বকাপের অন্যতম ফেবারিটরা এবার তাই নতুন করে ভাবছে সব কিছু।

ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি তো এখন বিশ্বকাপের হুমকি মনে করছেন সব দলকেই। কোহলির ভাষায়, ‘সত্যি করে বলতে বিশ্বকাপে সব দলই হুমকি। বিশ্বকাপে যে কোনো দল জেগে উঠতে পারে। যদি সেটা হয় তবে তাদের থামানো সত্যিই, সত্যিই খুব কঠিন হবে।’

তাই কোনো দলকেই ফেবারিট বলতে নারাজ কোহলি। সব দলকেই গণনায় রাখছেন ভারতীয় দলপতি, ‘আমি মনে করি না, কোনো দল বিশ্বকাপে ফেবারিট হিসেবে শুরু করবে। যে কোনো দলই ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে। আপনারা দেখেছেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিভাবে জেগে উঠেছে। তারা বিশ্বকাপে বড় হুমকি হবে, কারণ তারা ভারসাম্য পেয়ে গেছে। ইংল্যান্ড খুব শক্তিশালী দল হবে। অস্ট্রেলিয়াকেও ভারসাম্যপূর্ণ মনে হচ্ছে, আমরাও শক্তিশালী। নিউজিল্যান্ড ভালো দল, পাকিস্তান তাদের দিনে যে কাউকে হারাতে পারে।’

YOUR REACTION?

Facebook Conversations


Disqus Conversations